বুধবার ২৬শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আজ ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত দিবস

নিউজটি শেয়ার করুন

অনলাইন ডেক্সঃ

আজ ৮ ডিসেম্বর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত দিবস। অগ্নিঝরা ১৯৭১ সালের এ দিনে মুক্তিযুদ্ধের পূর্বাঞ্চলীয় জোনের প্রধান জহুর আহমেদ চৌধুরী ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের পুরাতন কাচারী ভবন সংলগ্ন তৎকালীন মহকুমা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষকরা জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে শত্রুমুক্ত করতে ১৯৭১ সালের ৩০ নভেম্বর থেকে জেলার আখাউড়া সীমান্ত এলাকায় মিত্রবাহিনী পাকবাহিনীর ওপর বেপরোয়া আক্রমণ চালাতে থাকে। পরে ১ ডিসেম্বর আখাউড়া সীমান্ত এলাকায় যুদ্ধে ২০ হানাদার নিহত হয়। ৩ ডিসেম্বর আখাউড়ার আজমপুরে প্রচণ্ড যুদ্ধ হয়। সেখানে ১১ হানাদার নিহত হয়। শহীদ হন তিন মুক্তিযোদ্ধা। এরই মাঝে বিজয়নগর উপজেলার মেরাশানী, সিঙ্গারবিল, মুকুন্দপুর, হরষপুর, আখাউড়া উপজেলার আজমপুর, রাজাপুর এলাকা মুক্তিবাহিনীর দখলে চলে আসে। ৪ ডিসেম্বর পাক হানাদাররা পিছু হটতে থাকলে আখাউড়া অনেকটাই শত্রুমুক্ত হয়ে পড়ে। সেখানে রেলওয়ে স্টেশনের যুদ্ধে পাকবাহিনীর দুই শতাধিক সেনা হতাহত হয়। ৬ ডিসেম্বর আখাউড়া সম্পূর্ণভাবে হানাদার মুক্ত হয়।

এরপর থেকে চলতে থাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত করার প্রস্তুতি। মুক্তিবাহিনীর একটি অংশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের দক্ষিণ দিক থেকে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক হয়ে এবং মিত্রবাহিনীর ৫৭তম মাউন্ট ডিভিশন আখাউড়া-ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেললাইন ও উজানীসার সড়ক দিয়ে অগ্রসর হতে থাকে। শহরের চতুর্দিকে মুক্তিবাহিনী অবস্থান নিতে থাকায় পাক সেনারা পালিয়ে যাওয়ার সময় ৬ ডিসেম্বরে রাজাকারদের সহায়তায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজের অধ্যাপক কে এম লুৎফুর রহমানসহ জেলা কারাগারে আটক থাকা অর্ধশত বুদ্ধিজীবী ও সাধারণ মানুষকে চোখ বেঁধে শহরের  কুরুলিয়া খালের পাড়ে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। ৭ ডিসেম্বর রাতের শত্রু বাহিনী ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর ছেড়ে আশুগঞ্জের দিকে পালাতে থাকে।

৮ ডিসেম্বর কোনও ধরনের প্রতিরোধ ছাড়াই ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর শত্রু মুক্ত হয়। সেইদিন বীর মুক্তিযোদ্ধারা ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে বিজয়ের বেশে প্রবেশ করে স্বাধীনতার বিজয় পতাকা উত্তোলন করেছিলেন। একই দিন সন্ধ্যায় জেলার সরাইল উপজেলা শত্রুমুক্ত হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মুক্তিযুদ্ধের গবেষক ও কবি জয়দুল হোসেন জানান, ৭ ডিসেম্বর আখাউড়াতে পরাজিত হওয়ার পর সন্ধ্যার মধ্যে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর ছেড়ে আশুগঞ্জে চলে যায়। ৮ ডিসেম্বর সকালে মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী যৌথভাবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শহরে পৌঁছে। কোনও ধরনের প্রতিরোধ ছাড়াই ৮ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত হয়। যারা প্রাণের ভয়ে শহর ছেড়ে দিয়েছিলেন, তারা সেদিন শহরের রাস্তায় নেমে যান। ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে মুক্ত এলাকা ঘোষণা করার পর রাজধানী ঢাকা দখলের জন্য যৌথবাহিনী পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ত্যাগ করে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত সম্পর্কে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নবীনগর বড়াইল ক্যাম্পের যুদ্ধকালীন কমান্ডার যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার বলেন, ‘শেষ দিনে বিনা যুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া হানাদার মুক্ত হয়। ৭১-এর ৮ ডিসেম্বর সকালে যখন মানুষ দেখতে পান, মুক্তি ও মিত্রবাহিনী শহরে প্রবেশ করেছে তখন সবাই জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে তাদেরকে অভিনন্দন জানান। সেদিন মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাসে মানুষের মাঝে স্বজন হারানোর বেদনা ছিল। তার পরও সে ব্যথা ভুলে বিজয়ের আনন্দে মেতেছিল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাধারণ মানুষ। হানাদার মুক্ত হওয়ার পর আমাদের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের জোনের কাউন্সিলের চেয়ারম্যান জহুর আহমেদ চৌধুরী আমাদের নেতা অ্যাডভোকেট আলী আযম ভূঁইয়া, লুৎফুল হাই সাচ্চু, মাহবুবুল হুদাসহ মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন বাংলাদেশের বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন।’

দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের আয়োজন করেছে মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ  ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

এই বিভাগের আরও খবর

রাজশাহীতে মোটরসাইকেলে হেরোইন পাচারকালে যুবক আটক

নিউজটি শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুননিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীতে মোটরসাইকেলে অভিনব কায়দায় হেরোইন পাচারকালে প্রায় ৫০ লাখ টাকার ৫০০ গ্রাম হেরোইনসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে আরএমপি’র কাশিয়াডাঙ্গা থানা পুলিশ।

পাকিস্তান সফর ইস্যুতে নিরাপত্তা শঙ্কায় অজি ক্রিকেটাররা

নিউজটি শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুনঅনলাইন ডেস্ক     সর্বশেষ ১৯৯৮ সালে পাকিস্তান সফর করেছিল অস্ট্রেলিয়া। এরপর কেটে গেছে দীর্ঘ ২৪ বছর। অবশেষে চলতি বছরের মার্চে পূর্ণাঙ্গ সফরে

পুত্র সন্তানের জনক হলেন যুবরাজ সিং

নিউজটি শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুনঅনলাইন ডেস্ক     বাবা হয়েছেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার যুবরাজ সিং। মঙ্গলবার তার স্ত্রী অভিনেত্রী হ্যাজেল কিচ পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছেন। এমন খবর যুবরাজ

৭ লাখ ৪১ হাজার বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী

নিউজটি শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুনঅনলাইন ডেস্ক দেশে ১৭ জানুয়ারি, ২০২২ পর্যন্ত ৭ লাখ ৪১ হাজার ২৬৫ জনকে বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার

বিশ্বব্যাপী লিথিয়াম সংকট

নিউজটি শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুনঅনলাইন ডেস্ক তারবিহীন ইলেকট্রনিক ডিভাইস মানে সেটা ব্যাটারিচালিত। আর ব্যাটারির মূল উপাদান হলো লিথিয়াম। সম্প্রতি বৈদ্যুতিক গাড়ির উৎপাদন বাড়ায় বিশ্বব্যাপী লিথিয়ামের চাহিদা বেড়েছে।

কিছু সমস্যা কাঁটার মতো সরকারের পায়ে বিঁধছে: ইনু

নিউজটি শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুন অনলাইন ডেস্ক দেশের কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা (ভিসি) শিক্ষার্থীদের সরকারের বিরুদ্ধে খেপিয়ে তুলছেন বলে অভিযোগ করেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক