শুক্রবার ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম:
৩০ দেশে শনাক্ত করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন কৃষকদের মাঠের ধান কেটে দিচ্ছে আধুনিক মেশিন বাংলাদেশের আজ বড় দুঃসময়: ফখরুল ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব আফ্রিকার সাত দেশ থেকে ফিরলেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপ, ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে আজই রাবিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শিক্ষামন্ত্রীর শ্রদ্ধা উপমহাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান ও মাতা মরহুমা জাহানারা জামানের সমাধীতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মনোনীত হওয়ায় ফুলেল শুভেচ্ছা

আমন সংগ্রহে কৃষকদের হয়রানি করা যাবে না, মন্ত্রণালয়ের ১৫ নির্দেশনা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

 

রতিবছরের মতো এবারও  আমন মৌসুমে কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ধান ও চাল সংগ্রহ করছে সরকার। গত ৭ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়া আমন ধান ও চাল সংগ্রহ অভিযান চলবে আগামী ২০২২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এই ধান-চাল সংগ্রহের সময় কোনও কৃষক যেন হয়রানির শিকার না হন— সে বিষয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সতর্ক থাকতে বলেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। গত ৮ নভেম্বর খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা এক পরিপত্রে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

পরিপত্রে সরকারিভাবে ধান ও চাল সংগ্রহ সফল করতে ১৫ দফা নির্দেশনায় দ্রুত সময়ের মধ্যে ধান ও চাল সংগ্রহ করতে বলা হয়েছে। নির্দেশনায় বলা হয়, অভ্যন্তরীণ খাদ্যশস্য সংগ্রহ নীতিমালা, ২০১৭’ অনুসারে সদ্য উৎপাদিত আমন ধান ও চাল সংগ্রহ নিশ্চিত করতে হবে।

সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, চলতি আমন মৌসুমে খোলাবাজার থেকে ২৭ টাকা কেজি দরে আমন ধান ও ৪০ টাকা কেজি দরে আমন ধানের সেদ্ধ চাল কিনবে সরকার। এ বছর ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ মেট্রিক টন ও সেদ্ধ চাল কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে ৫ লাখ টন।

পরিপত্রের নির্দেশনায় বলা হয়, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের গত ২৪ অক্টোবরের স্মারক মোতাবেক চুক্তিযোগ্য মিলারদের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন করতে হবে। আগামী ১৮ নভেম্বরের মধ্যে চাল সংগ্রহের জন্য মিলারদের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন করতে হবে। চুক্তি সম্পন্ন হওয়ার অব্যবহিত পর দ্রুত সময়ের মধ্যে মিলারদের অনুকূলে বরাদ্দপত্র ইস্যু করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অনুলিপি দিয়ে বিষয়টি অবহিত করতে হবে। হাস্কিং মিলারদের ক্ষেত্রে চুক্তিকৃত চাল সর্টিং করে সংগ্রহ করতে হবে।

ধান সংগ্রহের বিষয়টি মাইকিং, লিফলেট বিতরণ, ক্যাবল টিভি স্ক্রল প্রদর্শন প্রভৃতি উপায়ে বহুল প্রচারণার জন্য সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ধান সংগ্রহের ক্ষেত্রে অবিলম্বে জেলা ও উপজেলা সংগ্রহ ও মনিটরিং কমিটির সভা সম্পন্ন করতে হবে। কৃষকের অ্যাপের বাইরে উপজেলায় লটারি করে ধান সংগ্রহ দ্রুত শুরু ও শেষ করতে হবে। কৃষকের অ্যাপভুক্ত উপজেলায় রেজিস্ট্রেশন দ্রুত সম্পন্ন করে সিস্টেমে লটারি করে কৃষক নির্বাচনপূর্বক দ্রুত ধান সংগ্রহ করতে হবে।

খাদ্যগুদামে কৃষকবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। কৃষক যেন কোনোক্রমেই হয়রানির শিকার না হন সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

যেহেতু চলমান সংগ্রহ মৌসুমে পাক্ষিক ছাঁটাই ক্ষমতা অপেক্ষা বরাদ্দ কম তাই জাতীয় পর্যায়ে চাল সংগ্রহ ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ৬৫ শতাংশ, ৩১ জানুয়ারির মধ্যে ৮৫ শতাংশ এবং ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ১০০ ভাগ সম্পন্ন করার জন্য (তারিখ, পরিমাণ, সময়ভিত্তিক সিডিউল প্রস্তুতপূর্বক) জেলা, উপজেলা ও গুদামভিত্তিক রোডম্যাপ তৈরি ও সে অনুসারে সংগ্রহ সম্পন্ন করতে হবে।

সংগৃহীত প্রতিটি চালের বস্তায় সর্বশেষ নির্দেশনা অনুযায়ী স্টেনসিল প্রদান নিশ্চিত করতে হবে।

যুগপৎভাবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ধান ও চাল সংগ্রহ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে। গুদামে স্থান সংকট দেখা দিলে ‘চলাচল সূচি প্রণয়ন নীতিমালা, ২০০৮’ অনুসারে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক, মহাপরিচালক (খাদ্য) নিজ নিজ অধীক্ষেত্রে বিধি মোতাবেক স্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে চলাচল সূচি জারি করবেন। খালি বস্তার স্বল্পতা দেখা দিলে নিজ নিজ অধীক্ষেত্রের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত বস্তার স্বল্পতা নিরসনে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে, সংগ্রহ কার্যক্রমে সর্বোচ্চ জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকদের মনিটরিং জোরদার করতে হবে। সংগ্রহ ত্বরান্বিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, সংরক্ষণ ও চলাচল কর্মকর্তা, ব্যবস্থাপক, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক সর্বদা সর্বোচ্চ তৎপর ও সতর্ক থাকবেন। প্রতিদিন বিকালে সকল আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক দফতর থেকে ধান ও চাল সংগ্রহের তথ্য ও দৈনিক বাজারদর ই-মেইলে খাদ্য অধিদফতরের সংগ্রহ বিভাগে প্রেরণ নিশ্চিত করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার জানিয়েছেন, এবার লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী আমন সংগ্রহে সরকার শতভাগ সফলতা অর্জন করবে। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টরা নিজ নিজ ক্ষেত্রে কাজ করছে। কোনও ধরনের গাফিলতি বরদাশত করা হবে না। মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু হয়ে গেছে। কেন্দ্রিয়ভাবে আমন সংগ্রহ অভিযান কার্যক্রম মনিটর করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

৩০ দেশে শনাক্ত করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন

অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন। যা প্রথম শনাক্ত হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকায়। এই ভ্যারিয়েন্টকে বিশেষজ্ঞরা ডেল্টার চেয়ে ভয়াবহ বলছে। ওমিক্রন ডেল্টার চেয়েও দ্রুত গতিতে

কৃষকদের মাঠের ধান কেটে দিচ্ছে আধুনিক মেশিন

অনলাইন ডেস্ক: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় কৃষকদের মাঠের ধান কেটে দিচ্ছে কম্বাইন্ড হারভেস্টর নামের আধুনিক মেশিন। শুধু ধান কাটাই নয়, শ্রমিক ছাড়াই অল্প সময়ের মধ্যে মাড়াইও করা

বাংলাদেশের আজ বড় দুঃসময়: ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশের আজ বড় দুঃসময় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আজ বড় দুঃসময় বাংলাদেশের। দেশে গণতন্ত্র নেই। তাই

১০ ডিসেম্বর ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব

অনলাইন ডেস্ক: ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় আসছেন। বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

আফ্রিকার সাত দেশ থেকে ফিরলেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন

  অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন সংক্রমণ রোধে আফ্রিকা মহাদেশের ৭ দেশ থেকে ফিরে আসা যাত্রীদের জন্য ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শনিবার

বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপ, ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে আজই

অনলাইন ডেস্ক: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি সুস্পষ্ট লঘুচাপের পর গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এজন্য দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ১ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। আজ