বুধবার ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পেনাল্টির সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল? কী বলছেন বিশেষজ্ঞ রেফারিরা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

দীর্ঘ ১৬ বছর পর সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে জায়গা করে নেওয়ার সুযোগ এসেছিল বাংলাদেশের সামনে। নেপালের বিপক্ষে আগে গোল করে সেই সম্ভাবনা জেগেও উঠেছিল। কিন্তু রেফারির বিতর্কিত পেনাল্টির সিদ্ধান্তে কপাল পুড়েছে বাংলাদেশের। ১-১ গোলের ড্রতে প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠে গেছে হিমালয়ের দেশটি। তবে যে পেনাল্টিতে কপাল পুড়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের, সেটির সিদ্ধান্ত যৌক্তিক ছিল কিনা, এ নিয়ে উঠেছে সমালোচনার ঝড়।

গোলকিপার আনিসুর রহমান জিকোর লাল কার্ডে এমনিতেই একজন কম নিয়ে খেলছিল বাংলাদেশ। তারপরও ১-০ গোলে এগিয়ে থাকায় ১০ জন নিয়েও বাকিটা সময় পাড়ি দেওয়ার চেষ্টায় ছিল লাল-সবুজের দল। কিন্তু ম্যাচের একেবারে শেষ মুহূর্তে পেনাল্টির সিদ্ধান্তে মাথায় হাত! উজবেকিস্তানের রেফারি আক্সরোল রিসকুলায়েভের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নিয়ে উত্তাল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো। বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীরা ধুয়ে দিচ্ছেন রীতিমতো।

৮৭ মিনিটে বক্সের ওপর ভেসে আসা বলে এক নেপালি ফরোয়ার্ডকে পুশ করেছিলেন সাদ উদ্দিন। কিন্তু সেটি ফাউল ছিল কিনা, সেটা নিয়েই যত আলোচনা-সমালোচনা। বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা আপত্তি জানালেও উজবেক রেফারি নিজের সিদ্ধান্তে ছিলেন অটল। স্পট কিক থেকে অঞ্জন বিষ্টা লক্ষ্যভেদ করে বাংলাদেশের হৃদয় ভেঙে নেপালকে নিয়ে যান ফাইনালে।

মালে জাতীয় স্টেডিয়ামে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেখে  কাছে বাংলাদেশের দুই সাবেক ফিফা রেফারি নিজেদের মতামত দিয়েছেন। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) হেড অব রেফারি আজাদ রহমান বলেছেন, “এখানে মনে হয়েছে সাদ উদ্দিনের হালকা পুশ ছিল, যা রেফারিংয়ের ভাষায় ‘অজনপ্রিয়’ সিদ্ধান্ত। আইন অনুযায়ী রেফারি সঠিক সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। যদিও এমন ধরনের সিদ্ধান্ত সব মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।”

আরেক সাবেক সহকারী ফিফা রেফারি সুজিত ব্যানার্জির মত একটু ভিন্ন। তার কথায়, রেফারি এমন সিদ্ধান্ত না দিলেও পারতেন। সুজিতের বক্তব্য, ‘রেফারিংয়ের ভাষায় আনপপুলার সিদ্ধান্ত। এটা ছিল ফাউল ও নো ফাউলের মাঝামাঝি একটা বিষয়। যেমন হলুদ ও লাল কার্ডের মাঝামাঝি একটা জায়গা আছে। তবে রেফারির পাওয়ার আছে দেওয়ার।’

এরপরই সাবেক এই রেফারি যোগ করেন, ‘তার (সাদ উদ্দিনের) হাত হালকা ছিল ঘাড়ে। পুশ হয়েছে। তবে রেফারি সব সময় এমন সিদ্ধান্ত দেয় না। আমরা অনেক সময় বলে থাকি, না দিলেও পারতো। নো ফাউল হিসেবে ট্রিট করলেও কিছু হতো না। কারণ, বেশিরভাগ সময়ে সাধারণত এমন সিদ্ধান্ত দেয় না রেফারি। রেফারি আসলে পুশটাকে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন।’

এখানে আরেকটা বিষয় লক্ষণীয়। রেফারি যখন পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দিলেন, তখন বাংলাদেশ দল ছিল ১০ জনের। একজন কম নিয়ে খেলা দলের পক্ষে বেশিরভাগ সময় রেফারির একটু বাড়তি ‘নজর’ থাকে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে সেটা হয়নি। বরং ‘ফিফটি-ফিফটি’ সিদ্ধান্তও গেছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। বিশেষজ্ঞ দুই রেফরির কথায় রয়েছে সেই ইঙ্গিত!

এই বিভাগের আরও খবর

তানোরে হ্যাট্রিকের আশা নিয়ে মাঠে নামছেন মেম্বার আব্দুল মালেক

  সাইদ সাজু, তানোর থেকেঃ   তানোরে এবার হ্যাট্রিকের আশা নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নামছেন বাধাইড় ইউপির ১ নং ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল মালেক। বিনয়ী প্রকৃতির মানুষ

আরিয়ানের জামিন শুনানি আজ, টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়ার প্রস্তাব

অনলাইন ডেস্ক: প্রমোদতরীতে মাদককাণ্ডে গ্রেফতার শাহরুখপুত্র আরিয়ান খানের আজ মঙ্গলবার জামিন আবেদনের শুনানি মুম্বাই হাই কোর্টে। এ নিয়ে তৃতীয় বারের মত জামিনের আবেদন আরিয়ানের। এর

থামানো যাচ্ছে না পাকিস্তানকে

অনলাইন ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩৫ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে দলীয় ২৮ রানে ফেরেন অধিনায়ক বাবর আজম। ভারতের বিপক্ষে ৬৮ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলা এ

আসছে মিশন এক্সট্রিম

অনলাইন ডেস্ক: অপেক্ষার পালা শেষ। আগামী ৩ ডিসেম্বর প্রেক্ষাগৃহে আসছে পুলিশি অ্যাকশন থ্রিলার সিনেমা “মিশন এক্সট্রিম”। গত ২৪ অক্টোবর রাজধানীর তেজগাও এ জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে